1. admin@protidinbd24.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন
আমাদের ভিষন;
*সত্য প্রকাশে আমরা দূর্বার*
প্রধান খবর
দাম বাড়লো চামড়ার প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৪৭–৫৫ টাকা শিক্ষকরা নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কোচিং বা প্রাইভেট পড়াতে পারবেন না; যেসব রুট ধরে পদ্মা সেতু হয়ে ইউরোপে যাবে ট্রেন পদ্মা সেতু: ৩৫ বছরে সরকারের দেওয়া অর্থ পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ; পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট-বল্টু খুলে টিকটক ভিডিও তৈরি করা যুবক আটক সর্বনিম্ম ২ ঘন্টা থেকে ২০ ঘণ্টার দুর্ভোগ ৬ মিনিটে শেষ পদ্মা সেতুতে কোনো যানবহন দাড় করিয়ে ছবি তোলা যাবেনা; কুমিল্লা সিটি মেয়র নির্বাচনে হার-জিতের ইতিবৃত্ত; স্বপ্নের পদ্মা সেতু: সূচনা থেকে সর্বশেষ ইতিবৃত্ত তিনিই কি দূর্নীতির বরপুত্র? নাকি হাতির দন্ত! পদ্মা সেতুর টোল সংযোজন করে ভাড়া বাড়লো ১০টাকা; দক্ষিণ বঙ্গের ১৩টি রুটের বাসভাড়া নির্ধারণ; রাসুল (সঃ) কে নিয়ে কটূক্তি করায় বিজেপি নেতা গ্রেপ্তার ২৫তারিখেই উদ্বোধন হবে স্বপ্নের পদ্মা সেতু; পদ্মা সেতু নির্মাণ ব্যয় নিয়ে স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীর মিথ্যা প্রচারণাগুলোকে নিন্দা জানাই॥ Abc চট্টগ্রাম হাটহাজরীতে সাতবাচ্চার জম্ম দিয়েছেন এক মা; বার কাউন্সিল নির্বাচন: আ.লীগের সাদা প্যানেল ১০ ও বিএনপির নীল প্যানেল ৪ পদে জয়; দূর্নীতি মামলায় নর্থ সাউথের ৪ ট্রাস্টি সদস্য কারগারে; ভূমি সংস্কারে নতুন আইন, ব্যক্তি পর্যায়ে ৬০ বিঘা মালিকানার সুযোগ, বেশী হলে বাজেয়াপ্ত। পিকে (প্রশান্ত কুমার) হালদার ইস্যুতে চার সংস্থায় তথ্য চেয়ে চিঠি দিয়েছে দুদক।

মানুষের দ্বারে দ্বারে ত্রাণ সহায়তা নিয়ে মেয়র আতিক ও কাউন্সিলর তফাজ্জল হোসেন টেনু।

  • বুধবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২০
  • ২৮৮ বার পড়া হয়েছে

করোনা ভাইরাসের কারণে সবকিছু লকডাউন। ছায়ানটে নেই ভিড়। সবাই গৃহবন্দী নিজ পরিবারের সঙ্গে। ত্রাণ সরবরাহের কাজে ব্যস্ত ঢাকা উত্তর সিটি কর্রেপোশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। ও ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব তফাজ্জল হোসেন টেনু।

ঢাকায় ৪০ হাজার মানুষের কাছে ত্রাণ সহায়তা পৌঁছে দেয়ার জন্য কাজ করছেন এই ডিএনসিসি মেয়র। কিন্তু কাজটি সহজ নয়। সাধারণ কোন দুর্যোগে এক সঙ্গে হাজার মানুষকে কাজে লাগিয়ে হয়ত একদিনেই সকলের ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দেয়া সম্ভব। আবার ৪০ হাজার মানুষকে কয়েকটি এলাকা ভিত্তিক বুথে ভাগ করে কয়েকদিনে ত্রাণ পৌঁছে দেয়া যায়। কিন্তু এই করোনার প্রকোপের মধ্যে তা সম্ভব নয়। আর সে কারণেই বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছেন মেয়র আতিক। এতে কিছুটা সময় লাগলেও মানুষ তার নিজ ঘরে খাবার পাচ্ছে এবং সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে না।

ঢাকায় এখন পর্যন্ত প্রায় ১৭ হাজার মানুষের কাছে ত্রাণ সহায়তা পৌঁছে দেয়া হয়েছে বলে জানায় মেয়র আতিকের অফিস। এই ত্রাণগুলো দেয়া হচ্ছে ক্ষিলক্ষেত, কুড়িল, কুরাতলা, জোয়ারসাহারা, ওলীপাড়া, জগন্নাথপুর, শ্যমালি, আদাবর, উত্তরা, বালুরঘাট ও মাটিকাটা এলাকার হত দরিদ্রদের মধ্যে। কিন্তু এর পাশাপাশি বিপদগ্রস্ত প্রায় ৪০০ জনের বেশি মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্তের কাছেও খাবার পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দেয়ার বিষয়ে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, বিষয়টা বেশ কষ্টের। তারা কারো কাছে খাবার চাইতে পারে না। কিন্তু খাবার কিনতেও পারছে না। এমন একজনের বাড়িতে গতকাল আমি খাবার দিয়ে এসেছি। তার হাতে খাবার দেয়ার পর দেখলাম তার চোখ বেয়ে পানি পড়ছে। আমি আর কিছু বলতে পারিনি। চলে এসেছি। এই ব্যক্তিটি ২৫ হাজার টাকা ভাড়া দেয়া একটি বাড়িতে থাকে। কিন্তু এখন তার কোন আয় নেই। এমন মানুষগুলো কখনো সহায়তা চাইতে পারেনা।

এ সময় ত্রাণ দিয়ে ফটোসেশন না করার অনুরোধ জানিয়ে মেয়র আতিক বলেন, একজনের হাতে ত্রাণ দিয়ে গোল হয়ে দাড়িয়ে ফটোসেশন করা কতটা ঝুঁকিপূর্ণ তা কি আমরা ভেবে দেখেছি। সেই সঙ্গে এটা ভেবে দেখেছি, এভাবে একজন অসহায় মানুষকে আমরা হেয় করছি কিনা? আমি প্রত্যেকের বাসায় একটি করে ত্রাণ পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থাপনা হাতে নিয়েছি। সেখানে হয়ত জিজ্ঞাসা করায় কেউ আগ্রহ প্রকাশ করলে ছবি তোলা হচ্ছে। এ ছাড়া নয়। আর মধ্যবিত্ত শ্রেনী এই ছবির ভয়ে সাহায্য চাইতে পারছে না। সুতরাং নিশ্চুপভাবে ত্রাণ সহায়তা দেয়াটা এখন সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ। আমি যাদের হাতে হাতে ত্রাণ দিয়ে এসেছি, শুধু তারাই জানে বিষয়টি। তাদের যতটুকু সাহায্য করতে পেরেছি এতেই আমি খুশি।

নববর্ষে এই সময় সকলের নিজের আত্মীয় ও প্রতিবেশীদের খোঁজ নেয়া উচিত এমন মন্তব্য করে মেয়র আতিক বলেন, আপনি হয়ত জানেন না, কিন্তু আপনার পাশের বাসার মানুষটি নতুন বছরের শুরুতে না খেয়ে আছে। অথবা আপনার কোন এক আত্মীয় খাবারের কষ্টে আছে। এটা খুব কঠিন সময়। আমাদের প্রত্যেকের নিজ নিজ অবস্থান থেকে পাশের মানুষটিকে সাহায্য করতে হবে। আর সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। আমরা যদি এই নিয়ম হাটে বাজারে চলাফেরায় না মানতে পারি, তাহলে তার ফলাফল হবে ভয়াবহ। সরকার প্রদত্ত নির্দেশাবলী মেনে এখন সবাই ঘরে থাকলে একদিন নিশ্চয়ই আমরা আবার বাহিরে বের হতে পারব। এই খারাপ সময় একদিন শেষ হবেই।

একই ভাবে বিরামহীন ভাবে ত্রান সহায়তায় স্থানীয় জনগনের দ্বারে দ্বারে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব তফাজ্জল হোসেন টেনু।

প্রতিদিনবিডি24/একে আজাদ।

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

Categories

© All rights reserved 2020 protidinbd24

কারিগরি সহায়তা WhatHappen